1905 People Visite This Lesson.

বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস (Part -4 : মধ্যযুগ)





মধ্যযুগ (১২০১-১৮০০)

# প্রথম নিদর্শন : শ্রীকৃষ্ণকীর্তন
# কাব্যের প্রধান গুণ : ধর্মনির্ভরতা
#প্রধান মুসলমান কবি: দৌলত কাজী ও আলাওল
# এ যুগের শেষ কবি : ভারতচন্দ্র রায়গুনকর

উল্লেখ্যযোগ্য অনুবাদ সাহিত্য

অনুবাদকের নাম

অনূদিত গ্রন্থ

মূলগ্রন্থ

মূল রচয়িতা

কৃত্তিবাস ওঝা

রামায়ণ

রামায়ণ

বাল্মীকি

কাশীরাম দাস

মহাভারত

মহাভারত

ব্যাসদেব/বেদব্যাস*

সাবিরিদ খান

বিদ্যাসুন্দর

চৌরপঞ্চাশিকা,বিদ্যাসুন্দরম

বিলহন,বররুচি

শাহ মুহাম্মদ সগীর, আব্দুল হাকিম, ফকির গরীবুল্লাহ

ইউসুফ – জোলেখা

ইউসুফ ওয়া জুলয়খা

জামী

দৌলত উজির বাহরাম খান

লায়লী-মজনু

লায়লা ওয়া মজনুন

নিজামী

আলাওল, দোনাগাজী

সয়ফুলমুলুক বদিউজ্জামান

আলেফ লায়লা ওয়া লায়লা

-    

আলাওল

পদ্মাবতী

পদুমাবৎ

মালিক মুহাম্মদ জায়সী

আলাওল

সপ্তপয়কর

হফত পয়কর

নিজামী

আলাওল

সিকান্দারনামা

সিকান্দারনামা

নিজামী

আলাওল

তোহফা

তোহফাতুন নেসায়েহ

ইউসুফ গদা

নওয়াজিস খান, মুহম্মদ মুকীম

গুল-ই বকাওলী

তাজুলমূলক গুল-ই বকাওলী

ইজ্জতুল্লাহ

আবদুল হাকিম, আবদুল করিম মীর মুহম্মদ শফী

নূরনামা

-

 -

সৈয়দ হামজা

হাতেম তাই

আলেফ লায়লা ওয়া লায়লা

-    

সৈয়দ হামজা

আমীর হামজা

কিস্‌সা-ই-আমীর হামজা

মোল্লা জালাল বালখি

দৌলত কাজী ও আলাওল

সতীময়না ও লোরচন্দ্রানি

মৈনাসত

সাধন

                           মহাভারত

মহাভারত রচিত হয় – সংস্কৃত ভাষায়

মহাভারত প্রথম বাংলায় অনুবাদ করেন –কবীন্দ্র পরমেশ্বর [‘পরাগলী মহাভারত’ খ্যাত অনুবাদক]

 

                            রামায়ণ

রামায়ণ লিখেছেন – বাল্মীকি

বাল্মীকির মূল নাম -  রত্নাকর দস্যু

‘বাল্মীকি’ অর্থ - উইপোকা

রামায়ণের প্রথম ও শ্রেষ্ঠ অনুবাদক – কবি কৃত্তিবাস ওঝা

 

        মুসলিম সাহিত্য ও রোমান্টিক প্রণয়োপাখ্যান

বাংলা ভাষায় প্রথম মুসলমান কবির নাম – শাহ্‌ মুহম্মদ সগীর

‘ইউসুফ-জোলেখা’ প্রণয়কাব্য অনুবাদ করেছেন - শাহ্‌ মুহম্মদ সগীর

‘লাইলী-মজনু’ উপাখ্যান যে দেশের - ইরান

রোমান্টিক প্রণয়োপাখ্যান ধারার প্রথম কবি - শাহ্‌ মুহম্মদ সগীর

মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যের মুসলমান কবিগণের সর্বাপেক্ষা উল্লেখযোগ্য অবদান - রোমান্টিক প্রণয়োপাখ্যান

বাংলা সাহিত্যের প্রথম প্রণয়োপাখ্যান -  ইউসুফ-জোলেখা

হিন্দি ও ফারসি কাব্য যে কাব্যধারার প্রচলন হয় - প্রণয়োপাখ্যান

ফারসি বা হিন্দি সাহিত্যের উৎস থেকে উপকরণ নিয়ে রচিত প্রণয় কাব্যগুলোতে প্রতিফলন হয়েছে – মানবীয় বৈশিষ্ট্য 

 

    মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যের কয়েকজন পৃষ্ঠপোষক

আলাউদ্দীন হুসেন শাহ বাংলা সাহিত্যে যে কারণে খ্যাতিমান – অনুবাদের পৃষ্ঠপোষকতার জন্য

মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যের পৃষ্ঠপোষকতায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন – পাঠান শাসকবর্গ

রোসাঙ্গা রাজসভায় বাংলা সাহিত্য চর্চা মূল পৃষ্ঠপোষক – মাগন ঠাকুর

কবি হাফিজকে বাংলাদেশে আমন্ত্রণ জানিয়েছেলেন – গিয়াসউদ্দিন আযম শাহ

 

 

         আরাকান রাজসভায় বাংলা সাহিত্য

আলাওল যে রাজসভায় কবি ছিলেন – আরাকান রাজসভা

আরাকানে সমৃদ্ধ সাহিত্য সৃষ্টি হয়েছিল – সপ্তদশ শতকে

আরাকানে রাজসভায় প্রথম বাঙালি কবি – দৌলত কাজী

 

     আরাকান রাজসভায় উল্লেখযোগ্য সাহিত্যিক ও সাহিত্যকর্ম

 সাহিত্যিক

 সাহিত্যকর্ম

দৌলত কাজী

সতীময়না ও লোরচন্দ্রানী

মরদন

নসীরানামা

কোরেশী মাগন ঠাকুর

চন্দ্রাবতী

আলাওল

পদ্মাবতী, সপ্তপয়কর, সয়ফুলমুলুক বদিউজ্জামান, সিকান্দারনামা, তোহফা

আবদুল করীম খোন্দকার

দুল্লা মজলিস, হাজার মসাইল, নূরনামা

শমসের আলী

রিজওয়ান শাহ

 

                লোকসাহিত্য ও মৈমনসিংহ গীতিকা

ইংরেজি ‘Folklore’ শব্দের বাংলা প্রতিশব্দ – লোকসাহিত্য

লোকসাহিত্যের প্রাচীনতম নিদর্শন – ছড়া/প্রবচন ও ধাঁধা

গম্ভীরা গান গাওয়া হয় – রাজশাহী অঞ্চলে

ঠাকুরমার ঝুলি, ঠাকুরদাদার ঝুলি প্রভৃতি রূপকথার বই সম্পাদনা করেন – দক্ষিণারঞ্জন মিত্র মজুমদার 

‘মহুয়া’ পালাগানের অন্যতম চরিত্র – নদের চাঁদ

লোকসাহিত্যের উপাদান – গ্রামীণ এলাকার অখ্যাত সাহিত্যিকদের রচনা

পশুপাখির কাহিনি অবলম্বনে রচিত সাহিত্য – উপকথা

লোকসাহিত্য বলতে বোঝায় – লোকের মুখে মুখে প্রচলিত কাহিনি, গান, ছড়া, ইত্যাদিকে

Ballad  হলো – গীতিকা

‘মহুয়া’ পালাটির রচয়িতা – দ্বিজ কানাই

বাংলা সাহিত্যের সর্বাধিক সমৃদ্ধ ধারা – গীতিকবিতা

ময়মনসিংহ গীতিকা নয় – ভেলুয়া

‘মৈমনসিংহ গীতিকা’ সংগ্রহ করেন – ড. দীনেশচন্দ্র সেন

মৈমনসিংহ গীতিকার উপাখ্যান – জয়চন্দ্র-চন্দ্রাবতী

বারমাস্যা বলে – নায়িকার বারমাসের সুখ-দুঃখের বর্ণনাকে

 

                           পুঁথি ও নাথ সাহিত্য

দোভাষী পুঁথি সাহিত্যের প্রথম ও সার্থক কবি – ফকির গরীবুল্লাহ

পুঁথি সাহ্যিতের উদ্ভব – অষ্টাদশ শতাব্দীতে

নাথ সাহিত্য বলতে বোঝায় – নাথধর্মের কাহিনি অবলম্বনে রচিত সাহিত্য

নাথ সাহিত্যে স্থান পেয়েছে -  আদিনাথ, শিব, পার্বতী মীননাথ, গোরক্ষনাথ,হাড়িপা, কানুপা, ময়নামতী ও গোপীচন্দ্রের কাহিনি

দোভাষী পুঁথি বলতে বোঝায় – কয়েকটি ভাষার শব্দ ব্যবহার করে মিশ্রিত ভাষায় রচিত পুঁথি

বটতলার পুঁথি বলতে বোঝায় – দোভাষী বাংলায় রচিত পুঁথি সাহিত্য

পুঁথি সাহিত্যের প্রাচীনতম লেখক – সৈয়দ হামজা

পুঁথি সাহিত্য বলতে বুঝি – ইসলামী চেতনা সম্পৃক্ত সাহিত্য