1065 People Visite This Lesson.

বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস (Part -8 : আধুনিক যুগ)





বাংলা সাহিত্যের পাঠনের সুবিধার জন্য বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসকে তিনটি যুগে ভাগ করা হয়েছে
# ব্যাপ্তিকাল : ১৮০০-বর্তমান
# প্রধান লক্ষণ : আত্মচেতনা জাতীয়তাবাদ 
#
প্রধান বৈশিষ্ট্য : মানবের জয়জয়কার

আধুনিক যুগ (১৮০১- বর্তমান)

উল্লেখযোগ্য বাংলা প্রবন্ধকার ও প্রবন্ধ

প্রাবন্ধিক

প্রবন্ধগ্রন্থ/প্রবন্ধ

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

সভ্যতার সংকট, সাহিত্যের স্বরূপ, পঞ্চভূত, কালান্তর

কাজী নজরুল ইসলাম

রাজবন্দীর জবানবন্দী

রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন 

মতিচূর, অবরোধবাসিনী

আখতারুজ্জামান ইলিয়াস

সংস্কৃতির ভাঙা সেতু

মীর মশাররফ হোসেন

গোজীবন

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়

কমলাকান্তের দপ্তর, সাম্য,বিবিধ প্রবন্ধ, ধর্মতত্ত্ব অনুশীলন

আহমদ ছফা

জাগ্রত বাংলাদেশ, বাঙালি মুসলমানের মন

ড. আব্দুলাহ আল-মূতী শরফুদ্দীন

সাগরের রহস্যপুরী, এসো বিজ্ঞানের রাজ্যে, রহস্যের শেষ নেই, আবিষ্কারের নেশায়

বদরুদ্দীন ওমর

সংস্কৃতির সংকট, সাংস্কৃতিক সাম্প্রদায়িকতা

প্রমথ চৌধুরী

বীরবলের হালখাতা, তেল নুন লড়কি, রায়তের কথা, নানা কথা

কালীপ্রসন্ন ঘোষ

প্রভাত চিন্তা, নিভৃত চিন্তা, নিশীথ চিন্তা  বাঙালি ও বাঙলা সাহিত্য,

গোপাল হালদার

সংস্কৃতির রূপান্তর

ড. আহমেদ শরীফ 

সাহিত্য ও সংস্কৃতি চিন্তা, বাঙালি ও বাঙলা সাহিত্য, বিচিত চিন্তা

ড. লুৎফর রহমান

মহৎ জীবন,মানব জীবন, উন্নত জীবন, উচ্চজীবন সত্য জীবন

মোতাহের হোসেন চৌধুরী

সংস্কৃতির কথা, সভ্যতা

ড. আনিসুজ্জামান

স্বরূপের সন্ধানে

সঞ্জীবচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়

পালামৌ

জসীমউদ্‌দীন

চলে মুসাফির, যে দেশে মানুষ বড়

মুহম্মদ আব্দুল হাই

বিলাতে সাড়ে সাত শ’ দিন

ইব্রাহীম খাঁ

ইস্তাম্বুল যাত্রীর

অন্নদাশঙ্কর রায়

পথে ও প্রবাসে

সৈয়দ মুজতবা আলী

দেশে-বিদেশে (কাবুল শহরের কাহিনী প্রাধান্য পেয়েছে)

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

রাশিয়ার চিঠি, জাপান যাত্রী

যাযাবর (বিনয়কৃষ্ণ মুখোপাধ্যায়)

দৃষ্টিপাত

নির্মলেন্দু গুণ

ভলগার তীরে

 

              বাংলা বাক্য ও কবিতা

কাব্যগ্রন্থ

জসীমউদ্‌দীনের প্রথম কাব্যগ্রন্থ – রাখালী

মাইকেল মধুসূদন দত্তের ‘বিরাঙ্গনা কাব্য’ যে ধরনের কাব্য – পত্রকাব্য

‘অগ্নিবীণা’ কাব্যের প্রথম কবিতা – প্রলয়োল্লাস

ফররুখ আহমেদের শ্রেষ্ঠ কাব্যগ্রন্থের নাম – সাত সাগরের মাঝি

‘আমি কিংবদন্তীর কথা বলছি’ – এর রচয়িতা – আবু জাফর ওবায়ুদুল্লাহ

‘মা যে জননী কান্দে’ যে ধরনের রচনা – কাব্য

‘ফণি-মনসা’ কাব্যের রচয়িতা – কাজী নজরুল ইসলাম

‘সঞ্চিতা’ যে কবির কাব্য সংকলন - কাজী নজরুল ইসলাম

‘সঞ্চয়িতা’ যে কবির বাক্য সংকলন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

‘সিরাজাম মুনীরা’ কাব্যের রচয়িতার নাম - ফররুখ আহমেদ

কবি কাজী নজরুল ইসলাম ‘সঞ্চিতা’ কাব্যটি উৎসর্গ করেছিলেন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে

‘সোনালি কাবিন’ এর রচয়িতা – আল মাহমুদ

‘অনল প্রবাহ’ রচনা করেন – সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী

জীবনানন্দ দাশের রচিত কাব্যগ্রন্থ – ধূসর পাণ্ডুলিপি

রাধাকৃষ্ণবিষয়ক রচনা – ব্রজাঙ্গনা

‘ছায়াহরিণ’ যার গ্রন্থ – আহসান হাবীব

‘ভানুসিংহ ঠাকুরের পদাবলী’র ভাষা – ব্রজবুলি

‘সোনার তরী’ কাব্যগ্রন্থটির রচয়িতা - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

‘নকশী কাঁথার মাঠ’ এর রচয়িতা - জসীমউদ্‌দীন

বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের প্রাচীনতম শাখা – কাব্য

‘মহা পৃথিবী কাব্যগ্রন্থ যার লেখা – জীবনানন্দ দাশ

‘হিং টিং ছট’ কবিতাটি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের যে কাব্যগ্রন্থ হতে নেওয়া হয়েছে – সোনার তরী

সনেটের শেষ অংশকে বলে – ষষ্টক

‘কবর’ কবিতার লেখক - জসীমউদ্‌দীন

‘লোক লোকান্তর’ কাব্যগ্রন্থটির রচয়িতা – আল মাহমুদ

‘তন্বী’ কাব্যের কবি – সুধীন্দ্রনাথ দত্ত

‘বখ্‌তিয়ারের ঘোড়া’ যে শ্রেণীর রচনা – কাব্য

‘বিচ্ছন্ন প্রতিলিপি’ কাব্যগ্রন্থটির রচয়িতা – মযহারুল ইসলাম

‘আমার প্রেম আমার প্রতিনিধি’ কাব্যগ্রন্থটির রচয়িতা – আবুল হাসান

জসীমউদ্‌দীনের রচিত শিশুতোষ কাব্য – এক পয়সার বাঁশী

‘পুবের হাওয়া’ কাব্যগ্রন্থটির রচয়িতা – কাজী নজরুল ইসলাম

মাইকেল মধুসূদন দত্তের ‘তিলোত্তমাসম্ভব কাব্য’ একটি – কাহিনীকাব্য

‘মেঘ বলে চৈত্রে যাব’ কাব্যগ্রন্থের কবি – আহসান হাবীব

কাজী নজরুল ইসলামের প্রথম কাব্যগ্রন্থ – অগ্নিবীণা

‘বাংলাদেশ স্বপ্ন দ্যাখে’ কাব্যগ্রন্থের রচয়িতা – শামছুর রহমান

‘শিব মন্দির’ কাব্যগ্রন্থের রচয়িতা – কায়কোবাদ

‘সর্বহারা’ কাব্যগ্রন্থের রচয়িতা – কাজী নজরুল ইসলাম

‘দোলন চাঁপা’ কাব্যগ্রন্থটির রচয়িতা - কাজী নজরুল ইসলাম

‘বনি আদম’ কাব্যের রচয়িতা – গোলাম মোস্তফা

‘মেঘ দূত কাব্যের রচয়িতা – মহাকবি কালিদাস

আধুনিক বাংলা গীতিকাব্যের প্রথম ও প্রধান কবি – বিহারীলাল চক্রবর্তী

বাংলা কাব্য সাহিত্যে আধুনিক যুগের প্রবর্তক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত

বাংলা সাহিত্যের অমিত্রাক্ষর ছন্দে রচিত প্রথম প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ – তিলোত্তমাসম্ভবকাব্য

 

                                    

                                      বিখ্যাত বাংলা কাব্যগ্রন্থ

কবি

কাব্যগ্রন্থ

বিহারীলাল চক্রবর্তী (১৮৩৫-১৮৯৪)

সারদামঙ্গল, সাধের আসন, সংগীত শতক

মাইকেল মধুসূদন দত্ত (১৮২৪-১৮৭৩)

চতুর্দশপদী কবিতাবলি (১৮৬৬)

অমিয় চক্রবর্তী (১৯০১-১৯৮৭)

মাটির দেয়াল (১৯৪২), অনিঃশেষ (১৯৭৬)

আহসান হাবীব (১৯১৭-১৯৮৫)

রাত্রিশেষ (১৯৪৭), সারা দুপুর (১৯৬৪)

আবু জাফর ওবায়ুদুল্লাহ (১৯৩৪-২০০১)

আমি কিংবদন্তীর কথা বলছি (১৯৮১)

ইসমাইল হোসেন সিরাজী (১৮৮০-১৯৩১)

অনল প্রবাহ (১৯০০), স্পেন বিজয় কাব্য (১৯১৪)

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর (১৮১২-১৮৫৯)

প্রবোধ প্রভাকর (১৮৫৮)

কাজী নজরুল ইসলাম (১৮৯৯-১৯৭৬)

অগ্নিবীণা (১৯২২), সাম্যবাদী (১৯২৫), বিষের বাঁশি (১৯২৪)

গোলাম মোস্তফা (১৮৯৭-১৯৬৪)

রক্তরাগ (১৯২৪), বুলবুলিস্তান (১৯৪৯)

জসিমউদ্‌দীন (১৯০৩-১৯৭৬)

রাখালী (১৯২৭), নকশী কাঁথার মাঠ (১৯২৯)

জীবনানন্দ দাশ (১৮৯৯-১৯৫৪)

বনলতা সেন (১৯৪২), রূপসী বাংলা (১৯৫৭)

প্রেমেন্দ্র মিত্র (১৯০৪-১৯৮৮)

প্রথমা (১৯৩২), ফেরারী ফৌজ (১৯৪৮)

ফররুখ আহমেদ (১৯১৮-১৯৭৪)

সাত সাগরের মাঝি (১৯৪৪)

বন্দে আলী মিয়া (১৯০৬-১৯৭৯)

ময়নামতির চর (১৯৩২), অনুরাগ (১৯৩২)

বিষ্ণু দে (১৯০৯-১৯৮২)

উর্বশী ও আর্টেমিস (১৯৩৩), চোরাবালি (১৯৩৭)

বুদ্ধদেব বসু (১৯০৮-১৯৭৪)

বন্দীর বন্দনা (১৯৩০), কঙ্কাবতী (১৯৩৭)

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (১৮৬১-১৯৪১)

মানসী (১৮৯০), সোনার তরী (১৮৯৪), গীতাঞ্জলী (১৯১০), বলাকা (১৯১৬)

শামসুর রাহমান (১৯২৯-২০০৬)

প্রথম গান, দ্বিতীয় মৃত্যুর আগে (১৯৬০)

সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত (১৮৮২-১৯২২)

বেণু ও বীণা (১৯০৬), বেলা শেষের গান (১৯২৩)

সুধীন্দ্রনাথ দত্ত (১৯০১-১৯৬০)

তন্বী (১৯৩০), অর্কেস্ট্রা (১৯৩৫)

সুকান্ত ভট্টাচার্য (১৯২৬-১৯৪৬)

ছাড়পত্র (১৯৪৭), পূর্বাভাস (১৯৫০)

সুফিয়া কামাল (১৯১১-১৯৯৯)

সাঁঝের মায়া (১৯৩৮), অভিযাত্রিক (১৯৬৯)

হাসান হাফিজুর রহমান (১৯৩২-১৯৮৩)

বিমুখ প্রান্তর (১৯৬৩), আর্ত শব্দাবলী (১৯৬৮)

আল মাহমুদ (১৯৩৬-বর্তমান)

সোনালী কাবিন (১৯৭৩), বখতিয়ারের ঘোড়া (১৯৮৪)

 

কবিতা

‘হুলিয়া’ কবিতাটির রচয়িতা – নির্মলেন্দু গুণ

‘তুমি আসবে বলে হে স্বাধীনতা’ কবিতাটির রচয়িতা – শামছুর রাহমান

মুসলমান নারী জাগরণের কবি – রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন

সনেট কবিতার প্রবর্তক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত

‘দারিদ্র্য’ কবিতাটি নজরুল ইসলামের যে কাব্যের অন্তর্ভুক্ত – সিন্ধু হিল্লোল

‘তোমার সৃষ্টির পথ রেখেছ আকীর্ণ করি’ রবীন্দ্রনাথের যে কাব্যের কবিতা – শেষলেখা

কাজী নজরুল ইসলাম যে কবিতা  রচনার জন্য কারাবরণ করেন – আনন্দময়ীর আগমনে

জসীমউদ্‌দীনের ‘কবর’ কবিতা যে পত্রিকায় প্রথম প্রকাশিত হয় – কল্লোল

সনেটের অংশ – দুটি

‘চতুর্দশপদী কবিতাবলী’ এর রচয়িতা - মাইকেল মধুসূদন দত্ত

‘বিদ্রোহী’ কবিতাটি কবি কাজী নজরুল ইসলামের যে কাব্যগ্রন্থের অন্তর্গত – অগ্নিবীণা

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘ নির্ঝরের স্বপ্নভঙ্গ’ কবিতায় কবির উপলব্ধি হচ্ছে – ভবিষ্যৎ বিচিত্র ও বিপুল

মাইকেল মধুসূদন দত্তের দেশপ্রেম প্রবল প্রকাশ ঘটেছে – সনেটে  

বাংলায় টিএস এলিয়েটের কবিতার প্রথম অনুবাদক - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

‘পাঞ্জেরী’ কবিতাটি যে ছন্দে রচিত – মাত্রাবৃত্ত

আধুনিক বাংলা সাহিত্যের প্রথম বিদ্রোহী কবি - মাইকেল মধুসূদন দত্ত

ছাত্র অবস্থায় রচিত যে কবির কবিতা কলিকাতার পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল - জসীমউদ্‌দীন

সুফিয়া কামালের কবিতা – তাহারেই পড়ে মনে

বাংলা সাহিত্যে ছন্দের যাদুকর – সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত

‘বন্দী শিবির থেকে’ –এর কবি – শামসুর রাহমান

‘বাংলার মাটি, বাংলার জল’ কবিতার রচয়িতা - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

‘স্বাধীনতা তুমি রবি ঠাকুরের অজর কবিতা’ – কথাটির রচয়িতা - শামসুর রাহমান 

‘আবার আসিব ফিরে ধানসিঁড়িটির তীরে’ যে কবির কবিতা থেকে নেওয়া – জীবনানন্দ দাশ

‘মাগো ওরা বলে’ কবিতাটির লেখক – আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ

‘সাঁঝের মায়া’ কাব্যগ্রন্থটির লেখক – সুফিয়া কামাল

জীবনানন্দ দাশের একটি বিখ্যাত কবিতার নাম – বনলতা সেন

বাংলা সাহিত্যে প্রথম আধুনিক কবি  - মাইকেল মধুসূদন দত্ত

সুকান্ত ভট্টাচার্যের কবিতায় যার বিরুদ্ধে প্রবল প্রতিবাদ ধ্বনিত হয়েছে – সামাজিক অনাচার ও বৈষম্য

বাংলা সাহিত্যের প্রাচীনতম ধারা – কবিতা

আধুনিক যুগের প্রথম কবি – ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর

উনিশ শতকের প্রথম মহিলা কবি – রহিমুন্নেসা

আধুনিক বাংলা সাহিত্যের প্রথম মহিলা কবি – স্বর্ণকুমারী দেবী

বাংলা কবিতায় অমিত্রাক্ষর ছন্দের প্রবর্তক - মাইকেল মধুসূদন দত্ত (বাংলা সাহিত্যের প্রথম সনেট রচয়িতা)

বাংলা সাহিত্যের ছান্দসিক কবি – আবদুল কাদির